রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৬:১১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
দৈনিক হাওয়া ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১ ইং। খুলনায় বিএনপির সমাবেশে বক্তারা : আন্দোলনের মাধ্যমেই সরকার উৎখাত করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে কুমারখালীতে আবর্জনার স্তুপে গৃহবধুর লাশ উদ্ধার ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার সনজিভ ভাটির কুঠিবাড়ি ও বাঘা যতিনের ভিটা পরিদর্শ পরীক্ষা নেওয়ার দাবীতে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে শিক্ষার্থীরা রাজধানীর মানিকদীতে যুবলীগ নেতা গুলিবিদ্ধ কুমারখালীতে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত জনির উদ্দিনের পাশে দাঁড়ালো তরুণ সমাজসেবক মুশতাকের মৃত্যু নাগরিক সমাজে শীতল বার্তা দিচ্ছে, স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি কুষ্টিয়ায় করোনাকালীন সংকটেও রমরমা কোচিং বাণিজ্যের অভিযোগ শিক্ষকের বিরুদ্ধে মেহেরপুরে মোটরসাইকেল ও রোলার এর মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ শ্রমিক আহত

বিষণ্ণ মনে বাবার মোটরসাইকেলে চেপে আদালতে মিন্নি

অনলাইন ডেস্ক / ৬২ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৪:০৩ পূর্বাহ্ন

বহুল আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে আজ রায় ঘোষণা করবেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) সকাল ৮টা ৫২ মিনিটের ‍দিকে বাবা মোজা‌ম্মেল হক কি‌শোরের সঙ্গে কা‌লো রং‌য়ের এক‌টি মোটরসাইকেলযো‌গে নি‌য়ে আদালতপাড়ায় প্রবেশ করেছেন মামলার অন্যতম আসামি মি‌ন্নি। মিন্নি আদালতে আসেন বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরের মোটরসাইকেলে করে। মোটরসাইকেল চালান মোজাম্মেল হোসেন কিশোর। আর পেছনে বসা ছিলেন মিন্নি। সাদা পোশাক পরা মিন্নিকে এ সময় বেশ বিষণ্ণ দেখাচ্ছিল। এরপর আদালতের কার্যক্রম শুরু হওয়ার আগ পর্যন্ত বাবার সঙ্গেই আদালতের একটি কক্ষে অবস্থান করেন মিন্নি।

এ দিকে, রিফাত শরীফ হত্যা মামলার রায়কে কেন্দ্র করে আদালতপাড়াসহ জেলা কারাগার‌কে ঘি‌রে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হ‌য়ে‌ছে।

আদালতপাড়াকে ঘি‌রে স‌ড়কে যানবাহন চলাচলে নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা কার্যকর ক‌রে‌ছে আইন-শৃঙ্খলা বা‌হিনী। এছাড়াও আদালতপাড়ায় বি‌শেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হ‌য়ে‌ছে। সেবাপ্রত্যাশী‌দের সঙ্গে থাকা ব্যাগসহ প‌রিচয় নি‌শ্চিত ক‌রে আদালতপাড়ায় প্রবেশ করা‌নো হ‌চ্ছে।

পাশাপা‌শি কয়েক স্তরে র‌্যাব সদস্যসহ পোশাকধারী ও ডি‌বি পু‌লি‌শের সদস্যরা আদালতপাড়াসহ আশপাশে নিরাত্তায় নিয়োজিত রয়েছে।

এরই মধ্যে সকাল ৭টা ২৩মি‌নি‌টে জেলা ও দা‌য়রা জজ মো. আছাদুজ্জামান আদাল‌তে প্রবেশ ক‌রেছেন।

গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজ রোডের ক্যালিক্স একাডেমির সামনে স্ত্রী মিন্নির সামনে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে জখম করে নয়ন বন্ড ও রিফাত ফরাজীর সহযোগীরা। গুরুতর অবস্থায় রিফাতকে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বরিশাল শেরে-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রিফাত মারা যান।

এ ঘটনায় রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে সাব্বির আহম্মেদ ওরফে নয়ন বন্ডকে প্রধান আসামি করে ১২ জনের নামোল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও পাঁচ থেকে ছয়জনের বিরুদ্ধে বরগুনা থানায় হত্যা মামলা করেন। এ মামলায় প্রথমে মিন্নিকে প্রধান সাক্ষী করেছিলেন নিহত রিফাতের বাবা।

পরে ২ জুলাই ভোরে জেলা সদরের বুড়িরচর ইউনিয়নের পুরাকাটা ফেরিঘাট এলাকায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ প্রধান আসামি নয়ন বন্ড (২৫) নিহত হন।

প্রাথমিক অবস্থায় পুলিশ বিষয়টি আমলে না নিলেও ফেসবুকে এই হত্যাকাণ্ডের ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর নড়েচড়ে বসে বরগুনার পুলিশ প্রশাসন। দেশব্যাপী ওঠে সমালোচনার ঝড়। এরপর চেকপোস্ট, কড়া নিরাপত্তা ও তল্লাশিতে একে একে ধরা পড়ে অভিযুক্তরা।

হত্যাকাণ্ডের ২০ দিন পর গত বছরের ১৬ জুলাই মিন্নিকে তার বাবার বাসা থেকে বরগুনা পুলিশ লাইনে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে এই হত্যায় তার সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে মনে হওয়ায় ওইদিন রাতেই মিন্নিকে গ্রেপ্তার দেখায় পুলিশ।

পরে গত বছরের ১৭ জুলাই মিন্নিকে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। এরপর শুনানি শেষে আদালত মিন্নির পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। একপর্যায়ে গত বছরের ২০ জুলাই পাঁচদিনের রিমান্ডের তৃতীয় দিন একই আদালতে রিফাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন মিন্নি। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী।

পরবর্তীকালে ৪৯ দিন কারাভোগের পর গত বছরের ৩ সেপ্টেম্বর গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা না বলার শর্তে উচ্চ আদালতের নির্দেশে বরগুনার কারাগার থেকে জামিনে মুক্ত হন মিন্নি। জামিনের পর থেকে বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরের জিম্মায় বাড়িতে ছিলেন তিনি।

চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলার তদন্তকারী সদর থানার কর্মকর্তা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) হুমাউন কবির ১ সেপ্টেম্বর ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্ত ও অপ্রাপ্তবয়স্ক; দুই ভাগে বিভক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ জন এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জন রয়েছেন। তবে মামলার চার্জশিটভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মো. মুসা এখনও পলাতক।

এ দিকে, গত ১ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত। পরে ৮ জানুয়ারি থেকে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু করেন আদালত। মোট ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে এ মামলায়।

আলোচিত এই মামলার প্রাপ্তবয়স্ক আসামিরা হলেন- রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বী আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মো. হাসান, মো. মুসা, আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি, রাফিউল ইসলাম রাব্বী, মো. সাগর এবং কামরুল ইসলাম সাইমুন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
সর্বমোট
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect. Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.