শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:৫৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
দৈনিক হাওয়া ২২ জানুয়ারী ২০২১ ইং। অবৈধ সম্পদক অর্জন ঝিনাইদহের সাবেক ওসির ও স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা ধানের শীষের পক্ষে কাজ করায় ২ আ’লীগ নেতাকে বহিষ্কার ফেব্রুয়ারিতে খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কুমারখালীতে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারটির দাঁড়ালো ইয়থ ডেভলপমেন্ট ফোরাম দৈনিক হাওয়া ২১ জানুয়ারী ২০২১ ইং। কুষ্টিয়া মিরপুর পৌরসভার একটি কেন্দ্রে পড়েছে শতভাগ ভোট কুষ্টিয়া কালেক্টরেট স্কুলের নতুন একাডেমিক ভবনের ছাদ ঢালাই কাজ উদ্বোধন কুমারখালী শিলাইদহ ইউনিয়ন ভূমি অফিস ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন দৌলতপুরে অবৈধ ইটভাটায় র‌্যাবের অভিযান, ভ্রাম্যমান আদালতে ১১ ইট ভাটায় ৬৯ লাখ টাকা জরিমানা আদায়

কুষ্টিয়ার কুমারখালীর বাজারে যৌক্তিক কারণ ছাড়াই দফাই দফাই কাঁচামরিচের দাম বৃদ্ধি

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৪৭ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ২:০০ অপরাহ্ন

কুষ্টিয়া জেলা শহর ছাড়াও জেলার সকল উপজেলার বাজারে হঠাৎ বেড়েছে অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে গেছে কাঁচামরিচের দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে দাম বেড়েছে কয়েকগুণ। বর্তমানে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার বাজারে কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ২০০ থেকে ২৪০ টাকা । আবার জেলার কোন কোন বাজারে কাঁচা মরিচ কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকা দরে। টানা বৃষ্টিতে সরবরাহ কম হওয়ার কারণে কাঁচামরিচের দাম এমন অস্বাভাবিক বলছে ব্যবসায়ীরা। কুষ্টিয়ার সকল উপজেলা সহ কুমারখালী উপজেলার সকল বাজারে কাঁচা মরিচের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধিতে নাস্তানাবুদ সাধারন ক্রেতারা। কুমারখালীর আলাউদ্দিন নগরে বাজার করতে আসা সাদিয়া আত্তার প্রিয়া জানান, গত সপ্তাহেও কাঁচা মরিচের মূল্য ছিলো ১৬০ টাকা অথচ আজ দাম ২২০ টাকা। কুমারখালীর পৌর বাজারে বাজার করতে আসা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, আমরা সল্প আয়ের মানুষ, কিন্তু নিত্য প্রয়োজনীয় পন্যের দাম যদি প্রতিনিয়ত এভাবে বাড়তে থাকে তাহলে বউ বাচ্চা নিয়ে বেঁচে থাকায় কষ্টকর। চাষীরা জানায়, অতিবৃষ্টিতে অধিকাংশ মরিচ ক্ষেত নষ্ট হয়েছে। ফলে মরিচের উৎপাদন কম হয়েছে। সেই সুযোগ নিয়ে পাইকারী ও খুচরা বিক্রেতারা অতিরিক্ত মূল্য বৃদ্ধি করেছে। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, কয়েকদিন ধরেই টানা বৃষ্টি হচ্ছে। এতে মরিচের ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া উত্তরাঞ্চলে বন্যা দেখা দিয়েছে। সবমিলিয়ে কাঁচামরিচের দাম বেড়ে গেছে। এবিষয়ে কুমারখালী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দেবাশীষ দাশ জানান, কুমারখালীতে প্রতি মৌসুমে যে পরিমানে কাঁচা মরিচ উৎপাদন হয় সেটাতে উপজেলার চাহিদা মেটানো সম্ভব। কিন্তু উপজেলার বেশির ভাগ কৃষকরা তাদের উৎপাদিত কাঁচামরিচ কুষ্টিয়া জেলার বাইরে পাবনা সহ বিভিন্ন জেলাতে সরবরাহ করায় কিছুটা সমস্যা দেখা দিচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
সর্বমোট
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect. Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.