বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:০৩ পূর্বাহ্ন

গাংনীতে ভূঁয়া কবিরাজের মিনি হাসপাতালে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান : কবিরাজকে এক মাসের কারাদদন্ড

মেহেরপুর প্রতিনিধি / ৭৬ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : সোমবার, ৩১ আগস্ট, ২০২০, ৯:৫৭ অপরাহ্ন
আটক কবিরাজ সাজিদ হোসেন

মেহেরপুরের গাংনীতে কবিরাজ বাড়িতে ভ্রাম্যমান অভিযান চালিয়ে সাজিদ হোসেন নামের এক কবিরাজকে এক মাস বিনাশ্রম কারাদন্ড ও এক হাজার টাকা অর্থদন্ড করেছে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী অফিসার ও গাংনী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইয়ানুর রহমান। দন্ডিত কবিরাজ সাজিদ হোসেন নাটোর জেলার লালপুর উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের মাজদার হোসেনের ছেলে। সোমবার (৩১ আগষ্ট) বিকালে গাংনী উপজেলার তেরাইল (ওলিনগর) পাড়াস্থ তার কবিরাজ আস্তানায় অভিযান চালিয়ে এ দন্ডাদেশ দেন। এসময় গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাক্তার রিয়াজুল ইসলাম, গাংনী থানার সহকারী দারোগা (এএসআই) জামিরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী অফিসার ইয়ানুর রহমান জানান, ইউনানী ও ভেষজ নিয়ন্ত্রণ আইন ১৯৮৩ সালের ৩২(১) ধারায় অপরাধ প্রমানিত হওয়ায় ভূয়া কবিরাজ সাজিদুল ইসলামকে এক মাস বিনাশ্রম কারাদন্ড ও এক হাজার টাকা অর্থদন্ড করা হয়েছে। এছাড়া তার শশুর ওলিনগর পাড়া এলাকার বকুল হোসেনকে মুছলেকা নেয়া হয়েছে। এসময় বেশ কয়েকজন হাত পা ভাঙ্গা ভর্তি রোগীকে তার মিনি হাসপাতাল ছেড়ে চলে যাওয়ার নির্দেশ ও কথিত হাসপাতালটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর অফিসার ডাক্তার রিয়াজুল ইসলাম জানান, ভূয়া কবিরাজ সাজিদুল ইসলাম নাটোর থেকে এসে ওলিনগর গ্রামের তার শশুর বকুল হোসেনের বাড়িতে টিনশেড তৈরী করে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বিভিন্ন এলাকার হাত, পা, কোমরসহ শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ ভাঙ্গার চিকিৎসা দিয়ে আসছেন। গাংনী উপজেলার বাওট গ্রামের মৃত আব্দুল বারেকের স্ত্রী জমেলা খাতুন প্রায় এক মাস আগে পা ভাঙ্গা নিয়ে তার কাছে আসে। ১৩ হাজার টাকার চুক্তিতে চিকিৎসার নামে তাকে অস্বাস্থকর পরিবেশে ফেলে রাখে। গতকাল রোববার (৩০ আগষ্ট) তার অবস্থা খারাপ হওয়ায় বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। বাড়িতে গিয়েই মূমূর্ষ হয়ে পড়ে সে। পরে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার সময় মারা যান ওই নারী। ইতোমধ্যে তার ভূয়া চিকিৎসা নিয়ে এলাকার শত শত মানুষ চিরতরে পঙ্গু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গাংনী থানার ওসি ওবাইদুর রহমান জানান, দন্ডিত সাজিদ হোসেনকে বিকালেই আদালতের মাধ্যমে মেহেরপুর জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। স্থানীয়রা জানান, কবিরাজ সাজিদ হোসেন প্রথমে এখানে এসে বকুল হোসেনের বাড়িতে অস্থায়ভাবে চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু করে। পরে বকুল হোসেনের মেয়েকে বিয়ে করে স্থায়ীভাবে এলাকার রোগীদের বাড়িতে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দিয়ে থাকে। অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে গাছের পাতা ও তেল মালিশ করে চিকিৎসা দিয়ে থাকেন। তার চিকিৎসা নিয়ে এলাকার অনেকেই চিরতরে পঙ্গু হয়ে গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
সর্বমোট
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect. Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.