শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৪:৫৭ অপরাহ্ন

সিপিজে’র রিপোর্ট : করোনাকালে বাংলাদেশে সাংবাদিক নিপীড়ন

ঢাকা অফিস / ৫৬ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৪ জুলাই, ২০২০, ৯:২৯ অপরাহ্ন

চলতি বছরের ১০ই মার্চ থেকে ২১শে মে’র মধ্যে বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ অন্তত ছয়জন সাংবাদিককে আটক করেছে ও আরো অন্তত নয়জনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় তদন্ত চালু করেছে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন ও সাংবাদিকদের সঙ্গে সাক্ষাৎকারে এসব তথ্য উঠে এসেছে। ২০১৮ সালে পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় সরকার অনলাইনে রাষ্ট্র-বিরোধী বা জাতীয় নিরাপত্তা ও জনশৃঙ্খলার জন্য হুমকিস্বরূপ কোনো কর্মকাে র জন্য যেকোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে তদন্ত চালু করতে পারে, জরিমানা করতে পারে, এমনকি আটকও করতে পারে। বৃহস্পতিবার প্রকাশিত কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্টের (সিপিজে) এক প্রতিবেদনে এমনটা বলা হয়েছে। স্থানীয় গণমাধ্যমকে উদ্ধৃত করে সিপিজে জানায়, গত ১০ই মার্চ ‘মিথ্যা খবর ছাপানো ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানোর’ অভিযোগে করা এক মামলায় দৈনিক মানবজমিন-এর প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরীসহ ৩২ জন ব্যক্তির বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় তদন্ত চালু করে পুলিশ। মামলাটি দায়ের করেন ক্ষমতাসীন দলের এক নেতা। তিনি অভিযোগ করেন, গত ২রা মার্চ মানবজমিন-এ প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে ভুয়া তথ্য রয়েছে। স্থানীয় গণমাধ্যম অনুসারে, গ্যাং পরিচালনা, জাল নোটের ব্যবসা, মাদকের ব্যবসা ও নারী বাণিজ্য করার অভিযোগে অভিযুক্ত ক্ষমতাসীন দলের সাবেক এক নারী রাজনীতিককে নিয়ে প্রতিবেদনটি লেখা হয়েছিল। প্রতিবেদনটিতে পাপিয়ার সঙ্গে বেশ কয়েকজন আইনপ্রণেতার যোগসাজশ থাকার কথা বলা হয়। প্রতিবেদনটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করায় মামলার আসামি করা হয় মানবজমিন-এর প্রতিবেদক আল আমিনকেও। মামলাটিতে মতিউর রহমান চৌধুরীকে ১৮ই মার্চ আগাম জামিন দেয়া হয়। বর্তমানে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় আটক সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলও ওই মামলার আসামি ছিলেন। ৩১শে মার্চ অনলাইন নিউজ পোর্টাল ৩৬০ ডিগ্রি’র সম্পাদক সাগর চৌধুরীর ওপর হামলা চালান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সদস্য নাবিল হায়দার। ফোরাম অব ফ্রিডম এক্সপ্রেশন অনুসারে, দরিদ্রদের জন্য বরাদ্দকৃত সরকারি ত্রাণের খাদ্যচুরির ভিডিও করেছিলেন সাগর। সাগর বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, তার বিশ্বাস তিনি চাল বিতরণে অনিয়ম নিয়ে স্থানীয় কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করেছিলেন ও ভিডিওটি দেখিয়েছিলেন বলে তার ওপর হামলা হয়েছে। নাবিলকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ১লা এপ্রিল দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদের প্রতিবেদক শাহ্? সুলতান আহমেদ; আমার সংবাদের প্রতিবেদক মুজিবুর রহমান; চ্যানেল এস প্রতিনিধি বুলবুল আহমেদের উপর ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে হামলা চালান ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় এক নেতা। স্থানীয় গণমাধ্যম সূত্রমতে, হারুনের সঙ্গে আরো ২০ থেকে ২৫ জন ওই হামলায় জড়িত ছিলেন। শাহ্? সুলতান আহমেদ সরকারি ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম ফেসবুকে লাইভ প্রচার করায় তার ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে হামলা চালান হারুন। সুলতানকে বাঁচাতে গিয়ে হামলার শিকার হন মুজিবুর ও বুলবুল। তবে ১৮ই জুন সিপিজে’র পক্ষ থেকে হারুনকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি হামলা চালানোর কথা অস্বীকার করেন। ২রা এপ্রিল থেকে ৭ই মে পর্যন্ত বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ রেডিও ফ্রি এশিয়া সংশ্লিষ্ট বেনারনিউজ ব্লকড রাখে। বেনারনিউজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কেট বেডাল সিপিজিকে এক ই-মেইলে একথা জানান। বেডাল জানান, এরপর থেকে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে নিউজ সাইটটিতে প্রবেশ করা যায় না বাংলাদেশ থেকে। ৩রা এপ্রিল বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ জানায়, ‘ভুল তথ্য ও গুজব ছড়ানোর’ সঙ্গে জড়িত কিছু সাইট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তবে আলাদাভাবে বেনার নিউজ ব্লক করার কথা নিশ্চিত করেনি তারা। প্রসঙ্গত, ওই ঘটনার কিছুদিন আগে জাতিসংঘের ফাঁস হওয়া একটি মেমো নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল বেনারনিউজ। তাতে লেখা হয়, বাংলাদেশ সরকার যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে ২০ লাখ মানুষ করোনা ভাইরাসে মারা যেতে পারে। ১৪ই এপ্রিল দৈনিক বাংলাদেশ আলোর প্রতিবেদক গোলাম সারোয়ার পিন্টুকে ডিজিটাল নিরাপত্তার আইনে গ্রেপ্তার করা হয়। করোনাভাইরাস লকডাউনের মধ্যে ত্রাণের দাবিতে মিছিল নিয়ে ফেসবুক পেজ দৈনিক বদরের খবরে প্রতিবেদন প্রকাশ করেন পিন্টু। স্থানীয় গণমাধ্যম অনুসারে, এরপরই তার বিরুদ্ধে মামলা করেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৩৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শেখ সেলিম। পিন্টুকে ৮ই জুন জামিনে মুক্তি দেয়া হয়। ১৯শে এপ্রিল ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অধীনে চার জন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে তদন্ত চালু করে পুলিশ। তারা হচ্ছেন, বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমের সম্পাদক তৌফিক ইমরোজ খালিদী, নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মহিউদ্দিন সরকার, বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকমের কনট্রিবিউটর রহিম শুভ ও ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক শাওন আমিন। মামলাটি দায়ের করেন ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় এক নেতা। গণমাধ্যমগুলো এক প্রতিবেদনে, ওই নেতার সঙ্গে ত্রাণের চাল চুরিতে জড়িত একজন চাল ব্যবসায়ীর সম্পর্ক টেনে সংবাদ প্রকাশ করে। এছাড়া, ১৯শে এপ্রিল, বরিশালে বাংলা ভিশন টিভি’র প্রতিবেদক কামাল হোসেনের ওপর হামলা চালান মাদক নিয়ন্ত্রণ বিভাগের কর্মচারীরা। স্থানীয় গণমাধ্যম অনুসারে, ওই কর্মচারীরা লকডাউন ভেঙে জমায়েত করার ও স্থানীয়ভাবে তৈরি মদ বিক্রির ঘটনা ভিডিও করতে গিয়ে হামলার শিকার হন তিনি। ২১শে এপ্রিল বাংলাদেশ প্রতিদিন ও টিভি চ্যানেল নিউজ টুয়েন্টিফোরের প্রতিবেদক আব্দুল লতিফ লিটুর ওপর ঠাকুরগাঁওয়ে হামলা চালায় পুলিশ। ২৩শে এপ্রিল এসএটিভি’র প্রতিবেদন সজল ভূঁইয়ার ওপর হামলা চালান নরসিংদীর আমিরগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন ও তার সহযোগীরা। সরকারি ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ নিয়ে নাসিরের বক্তব্য চাইতে গেলে হামলার শিকার হন সজল। এ বিষয়ে নাসিরের সঙ্গে ১৮ই জুন ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি মন্তব্য করতে অস্বীকৃতী জানান। ১লা মে নরসিংদীর তিনজন সাংবাদিককে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় গ্রেপ্তার ও আটক করা হয়। তারা হচ্ছেন, দৈনিক গ্রামীণ দর্পণ পত্রিকার বার্তা সম্পাদক রমজান আলী প্রামাণিক, স্টাফ রিপোর্টার শান্ত বণিক (৩৫) ও অনলাইন পোর্টাল নরসিংদী প্রতিদিনের প্রকাশক ও সম্পাদক খন্দকার শাহিন (৩২)। ঘোড়াশাল ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল আলম পলাশ থানায় ওই তিন সাংবাদিককে আসামি করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন। তিনি অভিযোগ করেন, তার সঙ্গে কথা না বলে তার বরাত দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছেন ওই সাংবাদিকরা। তাদের ১৮ই জুন জামিনে মুক্তি দেয়া হয়। ১৪ই মে দৈনিক মেহেরপুর প্রতিদিনের তিন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তদন্ত চালু করে মেহেরপুর পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে ভুয়া তথ্য প্রকাশের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা মকবুল হোসাইনের ভাতিজা সবুক হোসাইন। অভিযুক্তরা হচ্ছেন- পত্রিকাটির প্রকাশক ইমন আহমেদ, সম্পাদক ইয়াদুক মোমিন, সম্পাদক আল আমিন। ২১শে মে দৈনিক আমার হবিগঞ্জের সম্পাদক সুশান্ত দাশ গুপ্তকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। সুশান্তের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন হবিগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সায়েদুজ্জামান জহির। মামলায় সুশান্তের পাশাপাশি আরো দৈনিক আমার হবিগঞ্জের আরো তিন সাংবাদিককে আসামি করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয় যে, তারা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট আবু জাহিরের বিরুদ্ধে অসত্য প্রতিবেদন প্রকাশ করেছেন। সুশান্তকে এই মামলায় ২৮ দিন পর জামিনে মুক্তি দেয়া হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
২,৯৪৯
৩৭
২,৮৬২
১৩,৪৮৮
সর্বমোট
১৭৮,৪৪৩
২,২৭৫
৮৬,৪০৬
৯০৪,৫৮৪
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect. Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.