মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০২:১০ পূর্বাহ্ন

কুষ্টিয়ায় ভাড়া না দেয়ায় বাড়িওয়ালার দেয়া আগুনে প্রাণ গেল জুলেখার

নিজস্ব সংবাদদাতা / ১২৬ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শনিবার, ৯ মে, ২০২০, ৬:৪৯ পূর্বাহ্ন

কুষ্টিয়া  দশদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে মৃত্যুবরন করলেন বাড়ি মালিকের ছেলের দেওয়া আগুনে অগ্নিদগ্ধ জুলেখা খাতুন। গতকাল কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে তিনি মৃত্যুবরন করেন ওই নারী। এর আগে  ৯ মাসের গর্ভবতী জুলেখা খাতুন অগ্নিদগ্ধ  হলে তার পেটের সন্তানও মৃত্যুবরন করে।  ন্যাক্কারজনক এই ঘটনায় কুষ্টিয়া শহররজুড়ে নিন্দার ঝড় ও দোষীদের শাস্তির দাবী উঠেছে।
ঘটনার সূত্রপাত বাসার ভাড়া নিয়ে। কুষ্টিয়া শহরের কমলপুর এলাকার বজলুল হকের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন নিহত জুলেখা খাতুন ও স্বামী মেহেদী হাসান। করেনাভাইরাসের কারনে কর্মহীন হয়ে পড়া মেহেদী হাসান দুই মাসের বাড়িভাড়া দিতে ব্যর্থ হন। এদিকে বাড়িভাড়া দিতে চাপ দিতে থাকেন বাড়ির মালিকের ছেলে রনি। এনিয়ে রনির সাথে নিহত গৃহবধুর সামান্য বাগবিতন্ডাও হয়। এর সূত্র ধরে গত ৩০ এপ্রিল দুপুরে ওই নারীর গায়ে পেট্রোল দিয়ে আগুন দেই ঘাতক। ফলে ওই নারীর শরীরের প্রায় ৭০ থেকে ৮০ অগ্নিদগ্ধ হয়। এলাকাবাসী পুলিশে খবর দিলে কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাতের নির্দেশে কুষ্টিয়া মডেল থানার ওসি গোলাম মোস্তফা তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে ছুটে যান। স্থানীয়দের সহযোগিতায় পুলিশ ওই নারীকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎকরা তার শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রেফার্ড করেন। কিন্তু ঢাকায় নেওয়ার মত এ্যাম্বুলেন্স ভাড়াও দেওয়ার মত অবস্থা ছিলো না পরিবারটির। পরে কুষ্টিয়া পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাতের নির্দেশে কুষ্টিয়া মডেল থানার ওসি গোলাম মোস্তফার চেষ্টায় পুলিশের সদস্যরা টাকা পয়সা তুলে ওই নারীর চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। এ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে ঢাকায় পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।  ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। পরে গতকাল তাকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাাধীন অবস্থায় গতকাল দুপুরে ওই নারীর মৃত্যু হয়।
কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা জানান, এই ঘটনায় অভিযুক্ত বাড়ির মালিকের ছেলে রনিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তদন্ত চলছে, খুব দ্রুত সময়ে তদন্ত শেষে আমরা আদালতে চার্জশীট জমা দিতে পারবো বলে আশা করি।
এলাকাবাসী জানান, ঘাতক রনি মাদকাসক্ত। তার অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ট। এই ঘটনায় দ্রুত সময়ে ঘাতক রনির দৃষ্টান্ত শাস্তি দাবি করেছে ভুক্তভোগী পরিবারসহ এলাকাবাসী।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
সর্বমোট
এক ক্লিকে বিভাগের খবর