সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ০৬:১৪ পূর্বাহ্ন

থমকে আছে দেশ, থেমে নেই ধর্ষণ!

Reporter Name / ১৯৩ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : রবিবার, ৩ মে, ২০২০, ৮:০৯ পূর্বাহ্ন
থমকে আছে দেশ, থেমে নেই ধর্ষণ! - ছবি: সংগৃহীত

অনলাইন ডেস্ক : করোনা পরিস্থতির মধ্যেই দেশে বেড়েছে ধর্ষণ। অনেক ক্ষেত্রে জামিনে বের হয়ে আবার একই অপরাধ করছেন আসামিরা। আইন বিশেষজ্ঞ ও মানবাধিকারকর্মীরা বলছেন, যৌন অপরাধীদের তালিকা না থাকা এবং তদারকির অভাবে অপরাধের পুনরাবৃত্তি ঘটছে।

তারা বলেন, করোনা মহামারিতে ধর্ষণের মত ঘটনা বেড়েছে এটা অত্যান্ত উদ্বেগজনক। করোনা আক্রান্ত রোগী তল্লাশীর নামে এদেশে ধর্ষণ হয় মেনে নেয়া যায় না। করোনায় ত্রাণ দেবার কথা বলেও এদেশে ধর্ষণ হয়। একদিন করোনারও প্রতিষেধক আবিস্কার হবে। ধর্ষণ রয়ে যাবে অপ্রতিরোধ্য।

তাদের দাবি, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে দায়ের করা মামলায় ৯৮ দশমিক ৬৪ ভাগ আসামি খালাস পেয়ে যায়। সাজা হয় মাত্র ১ দশমিক ৩৬ ভাগ আসামির।

আইন বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, করোনায় প্রশাসনে নজরদারি আরো বাড়াতে হবে। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে দায়ের হওয়া মামলার বিচারের ধীরগতির জন্য পুলিশের গাফিলতি ও আদালতের কাঠামো অনেকাংশে দায়ী।

বিচারক সংকট, সাক্ষী গরহাজিরসহ নানা কারণে এ-সংক্রান্ত মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তি হচ্ছে না। আর ধর্ষণের মামলায় সাজার নজির খুব কম তাই অপরাধীরা এসব অপরাধ করতে একটুও দ্বিধাবোধ করেন না। সুতরাং বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে বের হয়ে আসতে পারলেই এসব অপরাধ কমানো সম্ভব হবে বলে মত দেন তারা।

আইন ও সালিশকেন্দ্র আসকের ধর্ষণের সর্বশেষ পরিসংখ্যান বলছে— চলতি বছরের জানুয়ারী থেকে মার্চ পর্যন্ত সারাদেশে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ২৫৭ টি। এরমধ্যে ধর্ষণের শিকার ১২৩ জনই শিশু। আর ধর্ষণের শিকার হয়ে মারা গেছেন ১৬ জন। এসব ধর্ষণের ঘটনায় মামলা হয়েছে মাত্র ১৮৩ টি। বাকি ৭৫টি কোন মামলাই হয়নি।

এদিকে ২০১৯ সালে সারা দেশে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ১ হাজার ৪১৩ জন নারী। ২০১৮ সালে এই সংখ্যা ছিল ৭৩২ জন। এক বছরের ব্যবধানে এ সংখ্যা বেড়েছে দ্বিগুণ।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মনিরুল ইসলাম খান বলেন, একই অপরাধের পুনরাবৃত্তির পেছনে আইনি এবং সামাজিক কাঠামো অনেকাংশে দায়ী। যেহেতু শাস্তি হয়নি সেহেতু এটা তারা ঘটাচ্ছে বার বার। সামাজিক ও মনঃস্তাতিক কারণ উৎঘাটন ছাড়া অপরাধ নিমূল সম্ভব নয়।

ধর্ষণের পর হত্যা মামলার আসামি পারভেজ নামের এ মানুষটি। বয়স বিবেচনায় জামিনে মুক্ত পায় সে। এবার দুই শিশু সহোদরকে ধর্ষণের পর হত্যার পাশাপাশি খুন করেছে মা ও ভাইকেও। গ্রেফতারের পর নিজেই স্বীকার করে অপরাধ। তার সঙ্গে জড়িত আরো ৫ জনকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে ব্যারিস্টার সাবরিনা জেরিন বলেন, ধর্ষণ মামলায় কম সাজা ও আইনি দীর্ঘসূত্রিতায় বার বার ঘটছে এমন অপরাধ।

জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সালমা আলী বলেন, যে সব আসামিকে ধরা হয়নি বা জামিনে বের হয়েছে বিশেষ করে ধর্ষণ মামলার, সেই সব আসামির একটা তালিকা থাকে অন্যান্য দেশে। সেইসব অপরাধীর মনিটরিং করা হয়, তারা আবার হুমকি ধামকি দিচ্ছে কি না কিন্তু আমাদের দেশে তা করা হয় না।

মানবাধিকার কর্মীরা বলছেন, বিশ্বের অনেক দেশেই যৌন অপরাধে অভিযুক্তদের তালিকা করে তদারক করে স্থানীয় প্রশাসন। এ ব্যবস্থায় যেমন অপরাধ ঠেকানোর পাশাপাশি অপরাধীদের কাউন্সিলিং করার সুযোগ থাকে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
সর্বমোট
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect. Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.