শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ০২:৫৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সংবাদ শিরোনাম :
দ্বিতীয় ধাপের ৬০ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ চলছে কুমারখালীতে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন করায় ১৯ জনকে জরিমানা দৈনিক হাওয়া ১৬ জানুয়ারী ২০২১ ইং। কলাবাগানে ছাত্রী ধর্ষণ : বিচার দাবিতে মোমবাতি প্রজ্বলন রাত পোহালেই শৈলকুপা পৌরসভায় ইভিএমে ভোট বিজিবি মোতায়েন কুষ্টিয়া কুমারখালী পৌরসভা নির্বাচনে শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি বন্ধুত্বের নামে অহরহ যৌনতা হয়, এ দ্বায় পরিবার নাকি রাষ্ট্রের নদীভাঙ্গা রোধ করতে নদীর স্বাভাবিক বৈশিষ্ট্য ফেরাতে হবে : জাতীয় নদীরক্ষা কমিশন বিএনপির মুখে গণতন্ত্রের কথা শোভা পায়না- কুষ্টিয়ায় মাহাবুব উল আলম হানিফ কুষ্টিয়ায় চার পৌরসভায় নির্বাচনী সামগ্রী বিতরণ

কুষ্টিয়ায় প্রায় বিলুপ্তির পথে গরু দিয়ে হাল চাষ

নিজস্ব প্রতিবেদক: / ৭৩ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শনিবার, ২৮ নভেম্বর, ২০২০, ৫:৩৭ পূর্বাহ্ন

বর্তমানে কুষ্টিয়ার কৃষিপ্রধান অন্যান্য অঞ্চলের মতো কুষ্টিয়া জনপদের চিত্র একেবারেই অভিন্ন। এক সময় এখানকার বিল ও গ্রামীণ পলিবাহিত উর্বর এই জনপদের মানুষদের কাক ডাকা ভোরে ঘুম ভাঙত লাঙল জোয়াল আর হালের গরুর মুখ দেখে। এখন যন্ত্রের আধিপত্যে সেই জনপদের মানুষদের ঘুম ভাঙে ট্রাক্টরের শব্দে।
জমিতে বীজ বপন অথবা চারা রোপণের জন্য জমির মাটি চষার ক্ষেত্রে হাল ব্যবহার করে আর ওই মাটি মাড়িয়ে সমান করার জন্য মই ব্যবহার করা হতো। কৃষিকাজের জন্য ব্যবহৃত অন্যতম পুরনো যন্ত্র। এই কৃষিজমি আবাদের উপযোগী করার জন্য ষাঁড়, মহিষ প্রয়োজন হতো। লাঙল দিয়ে হালচাষ করতে কমপক্ষে একজন লোক ও এক জোড়া গরু অথবা মহিষ প্রয়োজন ছিল। বাংলাদেশের হাজার বছরের ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে লাঙল জোয়াল, মই, গরু ও মহিষ।
স্থানীয় প্রকৃত প্রবীণ কৃষকরা জানান, এক সময় কুষ্টিয়ার প্রায় প্রতিটি বাড়ির প্রতিটি ঘরেই ছিল গরুর লালন-পালন। গরুগুলো যেন পরিবারের এক একটা সদস্যের মতো। তাদের দিয়ে একরের পর একর জমি চাষ করার কাজে ব্যবহার করা হতো। তাজা ঘাস আর ভাতের মাড়, খৈলের ভুসি ইত্যাদি খাইয়ে হৃষ্টপুষ্ট করে তোলা হালের জোড়া বলদ দিয়ে জমি চষে বেড়াতেন কৃষক। কুষ্টিয়ার গ্রামীণ জনপদে থাকা জমিগুলোতে এই চাষাবাদ করা হতো। হালচাষের জন্য ‘প্রশিক্ষিত’ জোড়া বলদের মালিককে সিরিয়াল দিতে হতো জমি চষে দেয়ার জন্য। চাষের মৌসুমে তাদের কদর ছিল অনেক। কুষ্টিয়ার সদর উপজেলার ইবি থানার উজান গ্রাম ইউনিয়নের গজনবীপুর গ্রামের কৃষ্ক মোহাম্মদ জাফর আলী মন্ডল বলেন, অনেকের জীবনের সিংহভাগ সময় কেটেছে চাষের লাঙল জোয়াল আর গরুর পালের সঙ্গে।
এক সময়ের হালচাষের দীর্ঘ স্মৃতি কথা জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, ছোট বেলা থেকে হালচাষের কাজ দেখভাল করতেন। বর্তমান সময়ে ট্রাক্টরের দাপটে এখন আর গরু দিয়ে হালচাষ হয় না বললেই চলে। গ্রামীণ সমাজের অনেকেই এখন গরু পালন ছেড়ে দিয়েছেন। এখন আমরা সেই পুরনো স্মৃতিগুলোকে আঁকড়ে ধরে কষ্টের দিনগুলোর কথা মনে করে সময় পার করছেন বলে জানান কৃষক হরফ আলী মন্ডল । গরু দিয়ে হালচাষের উপকারিতার কথা বর্ণনা করে এলাকার উপসহকারী কৃষি অফিসার আশরাফ সিদ্দিকি বলেন গরু দিয়ে হালচাষ করলে জমিতে ঘাস কম হতো, হালচাষ করার সময় গরুর গোবর সেই জমিতেই পড়ত। এতে করে জমিতে অনেক জৈব সার হতো, এ জন্য ফসলও ভালো হতো।
বর্তমানে আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতির ব্যবহার কৃষি ক্ষেত্রে অনেক সাফল্য নিয়ে এসেছে স্বীকার করে কুষ্টিয়ার কৃষকেরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

বাংলাদেশে কোরোনা

সর্বশেষ (গত ২৪ ঘন্টার রিপোর্ট)
আক্রান্ত
মৃত্যু
সুস্থ
পরীক্ষা
সর্বমোট
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect. Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.